বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৫:৪২ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ
       
শিরোনাম :
সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কে কত ভোট পেলেন মাহফুজুর রহমান কালাম বেসরকারীভাবে নির্বাচিত আজ সোনারগাঁওয়ে উৎকন্ঠা ও আতঙ্কের ভোট, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে দুই প্রার্থী সোনারগাঁওয়ে আন্তর্জাতিক জাদুঘর দিবস উদযাপন, আনন্দ শোভাযাত্রা সোনারগাঁওয়ে নিরাপত্তাহীনতা ইউপি চেয়ারম্যান,  থানায় জিডি সোনারগাঁওয়ে জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে ফেসবুকে অপপ্রচারের অভিযোগ, থানায় জিডি সোনারগাঁওয়ে দু’দিনে ৪ হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন সোনারগাঁওয়ে পুলিশের তালিকাভূক্ত দুই সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার সোনারগাঁওয়ে রবীন্দ্রনাথ ও লোকসংস্কৃতি নিয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত সোনারগাঁওয়ে গত ৮ দিন ধরে দুই সহোদর নিখোঁজ

সোনারগাঁওয়ে প্রাইমারী স্কুলের পরিত্যাক্ত ভবন ভাঙতে শিক্ষা কর্মকর্তার বাঁধা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সোনারগাঁও নিউজ :
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা এক স্কুল ভবন ভাঙতে বাধা প্রদান করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। স্কুলের সভাপতিসহ পরিচালনা পর্ষদ উপজেলার বারদী ইউনিয়নের চেঙ্গাকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি ভেঙ্গে স্কুলের নিজস্ব জমি মাপঝাপ করে বুঝে নিয়ে শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ দিতে চাইলে এতে বাধা হয়ে দাড়ান উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দৌলতর রহমান। তাদের দাবি প্রতি বছর এ পরিত্যক্ত ভবনে চুনার কাজ করে টাকা হাতিয়ে নিতে তিনি এ ভবন ভাঙতে বাধা প্রদান করেন। তবে শিক্ষা কর্মকর্তার দাবি, এ ভবন ভাঙলে স্কুলের ওপর দিয়ে গ্রামের লোকজন যাতায়াত করবেন। তাই এ ভবন ভাঙতে আপত্তি জানিয়েছেন।

সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বারদী ইউনিয়নের ১১১নং চেঙ্গাকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি চার কক্ষ বিশিষ্ট প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ১৯৯৬ সালে কমিউনিটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে পাঠদান শুরু করেন। পরবর্তীতে বিদ্যালয়টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করে জাতীয়করণকরে সরকার। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০১৯ সালে চাহিদা ভিত্তিক নতুন জাতীয়করণকৃত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় অবকাঠামো  উন্নয়ন প্রকল্প-১ এর আওতায় ওই স্কুলের জমিতে ৩ তলা ফাউন্ডেশন ভিত্তিসহ ২ তলা ভবন নির্মাণ করে। ওই ভবন নির্মাণের পর শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা তাদের পাঠদান ও অফিস কার্যক্রম পরিচালনা করে ওই নতুন ভবনে। এরপর থেকে পুরাতন কমিউনিটি স্কুল ভবনটি পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হয়। সেই ভবনে কোন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা হয় না। ওই ভবনটি ভেঙে শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে ওই স্কুলের সভাপতি মো. কামাল হোসেন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু একাধিকবার আবেদন করার পরও শিক্ষা কর্মকর্তা ভাঙতে বাধা হয়ে দাড়িয়েছেন। এ নিয়ে শিক্ষা কর্মকর্তা সভাপতিকে অপমান অপদস্ত করে তার অফিস কক্ষ থেকে বের করেও দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছেন।

সরেজমিনে গিয়ে ওই স্কুলে গিয়ে জানা যায়, স্কুলের জমিতে দুটি ভবন রয়েছে। একটি দ্বিতল ভবন ও একটি টিনশেড সেমি পাকা ভবন। সেমি পাকা ভবনটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। সেই ভবনে ভেতরে ভাঙাচোরা বেঞ্চ ও বাঁশ ও অবর্জনা রেখে দেওয়া হয়েছে।

স্কুলের অভিভাবকদের দাবি, পুরাতন পরিত্যক্ত স্কুল ভবনটি ভেঙ্গে শিশুদের মানসিক বিকাশ ঘটনোর লক্ষে খেলার মাঠ করে দিলে শিশুরা উপকৃত হবে। আগামীর ভবিষ্যত শিশুরা হাসিখুশিতে মেতে উঠতে পারবে। শিক্ষা কর্মকর্তার সামান্য টাকার লালসায় যেন শিশুদের মানসিক বিকাশ বিঘœ না সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক জানিয়েছেন, শিক্ষা কর্মকর্তা একজন দূর্নীতিবাজ। তিনি বদলি বানিজ্য, বিভিন্ন স্কুল সংস্কার কাজ থেকে অর্থ দাবি করেন। অর্থ না দিলে তিনি বিল ভাউচারে স্বাক্ষর দেন না। তাছাড়া ৪টি সংসদ নির্বাচনে ঝুঁকিপূর্ণ স্কুলের মেরামত কাজ না করে তিনি অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা করেন। তার বিরুদ্ধে কয়েকজন শিক্ষক তার বিরুদ্ধে গত ২২ এপ্রিল শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন। এছাড়াও শিক্ষকদের কাছ থেকে পেনশন, মাতৃত্বকালীন ছুটি, চিকিৎসা ছুটি, ব্যাংক ঋণ, অনলাইনে শিক্ষক বদলির আবেদনে ঘুষ নিয়ে থাকেন। অভিযোগের প্রমাণ পেয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তার বিরুদ্ধে শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের অভিযোগ পত্র দাখিল করেন।

১১১নংচেঙ্গাকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মো. কামাল হোসেন সোনারগাঁও নিউজকে বলেন, পরিত্যক্ত পুরাতন ভবনটি ভেঙ্গে শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ করে দেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এ বিষয়ে কথা বলতে শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে গেলে তিনি আমাকে তার কক্ষ থেকে বের করে দেন।

বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লায়ন মাহবুবুর রহমান বাবুল সোনারগাঁও নিউজকে জানান, শিক্ষা কর্মকর্তার আপত্তিতে ভবনটি সরানো যাচ্ছে না। এলাকাবাসী ও অভিভাবকরা একাধিকবার আমার কাছে এসেছেন। প্রাক্তন ইউএনওকে স্কুলে নিয়ে ভবনটি দেখানো হয়েছে। তিনি ভেঙে খেলার মাঠ করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। সংসদ নির্বাচনে বদলি হওয়া কাজটি করা সম্ভব হয়নি।

সোনারগাঁও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দৌলতর রহমান জানান, শিক্ষকদের অভিযোগের কোন সত্যতা নেই। কারো কাছে কোন টাকা পয়সা নেই নি। স্কুল ভবন ভেঙ্গে খেলার মাঠ করার বিষয়ে আমার কোন আপত্তিও নেই। তবে সরকারী স্কুলের জমির ওপর দিয়ে স্থানীয়রা রাস্তা নির্মাণ করতে চাওয়ায় আমি আপত্তি জানিয়েছি।

পোস্টটি শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © Sonargaonnews 2022
Design & Developed BY N Host BD